কলার ১০টি উপকারিতা ও অপকারিতা জেনে নিন

কলা আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী একটি খাবার। কলা খেলে কি উপকার হয় এই সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানিনা। দেহের ওজন কমাতে এবং আমাদের ত্বক ভালো রাখতে কলার উপকারিতা অনেক। তাই আপনাদের জন্য আমরা আজকের পোস্টটিতে কলার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা তুলে ধরার চেষ্টা করব। তাই কলার উপকারিতা সম্পর্কে জানতে পোষ্টটি সম্পন্ন মনোযোগ সহকারে পড়ুন।
কলার ১০টি উপকারিতা ও অপকারিতা
পোস্টসূচিপত্রঃকলা আমাদের শরীরের জন্য উপকারী একটি ফল। দেহের ওজন কমাতে এবং আমাদের শরীরের ত্বকের যত্নে কলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই প্রিয় পাঠক আমি যদি কলার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে শেষ পর্যন্ত আমাদের সাথে থাকুন।

ভূমিকা

কাল আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী একটি ফল। এটি আমাদের ওজন কমাতে এবং ত্বকের যত্নে গুরুত্বপূর্ণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই কলার বিভিন্ন উপকারিতা জানতে সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়বেন। তাহলে আশা করি কলা নিয়ে সকল সমস্যা দূর হয়ে যাবে। এই সম্পূর্ণ পোস্টটিতে আপনি কলার বিভিন্ন  ভালো এবং খারাপ দিকসম্পর্কে জানতে পারবেন। 

তাই আপনারা কলা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পোস্টটি সম্পন্ন মনোযোগ সহকারে পড়ুন। কারণ কলার অনেক উপকারিতা রয়েছে যা জেনে আপনারা নিয়মিত খেতে শুরু করবেন। আর এজন্যই আমরা আজকের পোস্টটিতে কলার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করব। চলুন কথা না বাড়ি এবার জেনে নেওয়া যাক।

কলার ১০টি উপকারিতা

আপনার অনেকে আমাদের কাছে কলা খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। কলা কত উপকার।করে থাকে তা বলে বোঝানো সম্ভব নয়। কলা আমাদের দেহের জন্য খুবই পুষ্টিকর একটু উপাদান। চলুন কথা না বাড়িয়ে এবার শুরু করা যাক কলার দশটি উপকারিতা সম্পর্কে জানা।
  • আমাদের শরীরের হৃদরোগ নিয়ন্ত্রণ করে।
  • কলা খেলে কিডনি ভালো থাকে।
  • কলা খেলে আমাদের শরীরে শক্তি বেড়ে যায়।
  • খাদ্য হজমে সাহায্য করে।
  • কলা আমাদের মানসিক চাপ কমায়।
  • কলা শরিলে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।
  • আমাদের দেহের পাকস্থলীর আলসার দূর করতে সাহায্য করে।
  • আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  • ভালো ঘুম হয় কলা খেলে।
  • কলা খেলে ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে যায়।
তাহলে আশা করছি আপনারা এতক্ষণে কলা খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে গেছেন।

নিয়মিত কলা খাওয়ার উপকারিতা

কলার মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে গুণ। প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় আপনি যদি একটি করে কলা খান তাহলে আপনার শরীর থাকবে একদম চাঙ্গা। সাধারণত কলা খেলে আমাদের হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়। কাঁঠালি কলাতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন B6 থাকে যা আমাদের শরীরে পুষ্টি জোগাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কলার মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম যা আমাদের হারকে মজবুত করতে সাহায্য করে।

নিয়মিত কলা খেলে আমাদের শরীরে ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে এই কলা। কাঠালি কলার মধ্যে ভিটামিন এ থাকায় এটি আমাদের চোখের ছানি পড়ার হাত থেকে আমাদের চোখকে রক্ষা করে। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে কলার গুরুত্ব অপরিসীম। অত্যাধিক ধূমপান বা তামাক সেবনের ফলে আমাদের দাঁত বা দাঁতের রং পাল্টে যায়।

দাঁতের ওপর পড়া কালো দাগ দূর করতে কলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সুন্দর রাখতে কলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। আপনি যদি তক উজ্জ্বল এবং টানটান রাখতে চান তাহলে আপনি কলা খেতে পারেন। তাহলে আপনি বুঝতে পারলেন যে নিয়মিত কলা খেলে আপনাদের এই প্রবলেম গুলার সমাধান হবে। তাই শরীর সুস্থ ও সুন্দর রাখতে নিয়মিত কলা খান।

কাঁঠালি কলা খাওয়ার উপকারিতা

আমাদের শরীরের জন্য কলার উপকারিতা প্রচুর পরিমাণে রয়েছে।কলার মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে গুণ। প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় আপনি যদি একটি করে কলা খান তাহলে আপনার শরীর থাকবে একদম চাঙ্গা। কাঠালি কলার মধ্যে ভিটামিন এ থাকায় এটি আমাদের চোখের ছানি পড়ার হাত থেকে আমাদের চোখকে রক্ষা করে। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে কলার গুরুত্ব অপরিসীম। অত্যাধিক ধূমপান বা তামাক সেবনের ফলে আমাদের দাঁত বা দাঁতের রং পাল্টে যায়।দাঁতের ওপর পড়া কালো দাগ দূর করতে কলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

কাঁঠালি কলার ভেতরের অংশ আপনার ফেসের ব্রণ কমাতে সাহায্য করে। ও যদি আপনি কাঁঠালি কলার ভেতরে অংশ আলতো করে আপনার মুখে লাগান তাহলে আপনার ব্রণ কমতে সাহায্য করবে। আমাদের বিভিন্ন মানুষের শরীরে এলার্জি এবং চুলকানি থাকে। আর এই এলার্জি এবং চুলকানি দূর করতে কলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। মানুষের ফাটা গোড়ালিতে পাকা কলা লাগালে গোড়ালির সমস্যা অনেকটাই দূর হয়ে যায়। আপনি যদি আপনার চুল সুস্থ ও স্বাস্থ্যবান রাখতে চান তাহলে অবশ্যই কলার একটি প্যাক ইউজ করুন।

তাহলে আপনার চুল হবে সুস্থ এবং সুন্দর। আপনার মস্তিষ্ক ঠান্ডা রাখতে কলা খেতে পারেন। আমরা অনেকেই জানিনা কলাতে থাকা ফাইবার আমাদের শরীরের ফ্যাট কমাতে খুবই উপকারী। এটি আমাদের শরীরের ফ্যাট কমিয়ে দেয়। কলাতে থাকা ভিটামিন সি শরীরে আইরনের মাত্রা ঠিক রাখতে সাহায্য করে। অলাতে রয়েছে পটাশিয়াম আর এই পটাশিয়াম আমাদের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং আমাদের হার্ট ভালো রাখে।

কাঁচা কলার উপকারিতা

সাধারণত আমরা প্রতিদিন যেই জিনিসগুলো খাই তার ওপরে নির্ভর করে আমাদের শরীরে সুস্থতা। কাচা কলা আমাদের শরীরের রক্তশূন্যতা দূর করে, আমাদের শরীরের হজম ক্ষমতার বৃদ্ধি করে এবং আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেকটা অংশেই বাড়ায় দেয়। এছাড়াও কাঁচা কলা রয়েছে নানা রকম পুষ্টিগুণ। সাধারণত আমরা অনেকেই জানিনা প্রতি 100 গ্রাম রান্না করা কাঁচা কলার ক্যালরি থাকে 116 গ্রাম।

তার মধ্যে ফ্যাট থাকে 0.3 গ্রাম, শরকরা ৩১ গ্রাম, আমিষ ১.৩০ গ্রাম, খাদ্য আঁশ ২.৩ গ্রাম এবং চিনি চৌদ্দগ্রাম এবং আরো রয়েছে সোডিয়াম পাঁচ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম 465 মিলিগ্রাম এবং ক্যালসিয়াম তিন মিলিগ্রাম। এছাড়াও কাঁচা কলার মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন রকম পুষ্টিগুণ। কাঁচা কলা খেলে আমাদের শরীরে রক্তশূন্যতা দূর হয়। কাঁচা কলা রান্না করে খেলে আমাদের শরীরের সহায়তা করে এবং আমাদের শরীরের দূর হয়ে যায়।

সাধারণত পাকা কলার চেয়ে কাঁচা কলায় ভিটামিন সি এর পরিমাণ বেশি থাকে। যাতে কাঁচা কলা আমাদের শরীরের জীবাণু সংক্রমণ রোধ করে। কাঁচা কলাই রয়েছে প্রচুর পরিমাণে মিনারেল যা আমাদের হৃদরোগ কমাতে সাহায্য করে এবং আমাদের হাড়কে শক্ত করে। তাই বলা যায় যে আপনারা শরীরের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং শরীর থেকে বিভিন্ন রোগ মুক্ত করতে নিয়মিত কাঁচা কলা খান।

সকালে কলা খাওয়ার উপকারিতা

সকালে কলা খাওয়ার উপকারিতা অনেক। তবে ডাক্তারের পরামর্শ মতে সকালে খালি পেটে কলা খাওয়া একদম ঠিক না। তবে আপনি সকালের খাবারের সাথে কলা খেতে পারেন। কাল আমাদের দেহের কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে আমাদের শরীরকে ঠান্ডা রাখে। রক্ত স্বল্পতা নিরাময়ে কলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। কলায় পটাশিয়াম ফাইবার এবং ম্যাগনেসিয়াম থাকায় এটি আমাদের শরীরে শক্তি বাড়ায় এবং আমাদের শরীরের ক্ষুধা কমায়।

তাই বলা যায় যে খালি পেটে শুধুমাত্র কলা নয় অন্য কোন ফলমূল এড়িয়ে চলাই ভালো। কিন্তু আপনি সকালে কিছু পরিমাণ পানি খেয়ে তারপরে সকালের খাবারে কলা খেতে পারেন। তাহলে এটি আপনার অনেক উপকারে আসবে।

রাতে কলা খাওয়ার উপকারিতা

রাতে কলা খাওয়া নিয়ে অনেকের মনে অনেক প্রশ্ন রয়েছে। আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছে যারা রাতে কলা খেতে বারণ করে। কলা আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী। বিজ্ঞান বলে রাতের বেলা কলা খাওয়া বিপদজনক নয়। তবে কলা একটি ঠান্ডা ফল। যাদের সর্দি এবং কাশি রয়েছে তাদের রাতে কলা না খাওয়াই ভালো।

কারণ কলা হজম করতে অনেক বেশি সময় নেয়। সারাদিন ক্লান্ত শরীর শেষে রাতে একটি কলা খেলে আপনার ঘুম ভালো হবে। সন্ধ্যায় অথবা রাতে এক থেকে দুইটি কলা খেলে আপনার রাতের ঘুম ভালো হবে। এই কলা খেলে আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।

কলার ক্ষতিকর দিক - কলার অপকারিতা

গলায় উচ্চমাত্রায় পটাশিয়াম থাকায় একসাথে দুইটির বেশি কলা খাওয়া আমাদের উচিত নয়। আর গর্ভবতী মেয়েরা ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া একদমই খাবেন না। আগে ডাক্তারের পরামর্শ নিন তারপর কলা সেবন করুন। একটা বিষয় খেয়াল রাখবেন যে কলা খাওয়ার পর আপনি যদি মুখ না ধন তাহলে আপনার দাঁতের ক্ষয় হতে পারে। একসাথে বেশি কলা খেয়ে নিলে মাথা ব্যথা এবং ঘুমের সমস্যা হতে পারে।

তাই পরিমাণ মতো কলা খান। বেশি কলা আমাদের জন্য ক্ষতিকর। সব জিনিসেরই দুইটি দিক থাকে একটি ক্ষতিকর দিক এবং অপরটি ভালো দিক। সাধারণত কলার টিপস এ অতিরিক্ত ফ্যাট এবং সুগার থাকে। ডায়াবেটিস রোগী হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শে কলা খান।

শেষ কথা ।কলার উপকারিতা ও অপকারিতা

কল আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী। আশা করি এই সম্পূর্ণ পোস্ট পড়ে কলার ১০টি উপকারিতা ও অপকারিতা বিষয়ক সকল সমাধান পেয়ে গেছেন। যদি এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন এবং নিত্য প্রয়োজনীয় সমস্যার সমাধান পেতে আমার এই ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

আজকের ইনফো নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url